1. alimsnb0@gmail.com : Abdul Alim :
  2. zunaid365@gmail.com : Natore Times :
  3. robinsnb18@gmail.com : Robin :
নাটোরের পুরনো জেলখানা এখন আইটি কেন্দ্র - Natore Times :: নাটোর টাইমস

নাটোরের পুরনো জেলখানা এখন আইটি কেন্দ্র

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২২ ডিসেম্বর, ২০২১

নাটোর জেলার কয়েক দশক আগের একটি পুরনো জেলখানা আইটি কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে এবং এখন এটি বৈশ্বিক অর্থনীতির পরিবর্তিত কারিগরী পরিবর্তনের সঙ্গে তাল মেলাতে আইসিটি জ্ঞানে সমৃদ্ধ দক্ষ মানবসম্পদে গড়ে তোলার ক্ষেত্রে মুখ্য ভূমিকা পালন করছে।

আইসিটি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, যুবকদের কারিগরী জ্ঞানে সমৃদ্ধ করার পথ সুগম করতে জেলখানাটি এখন একটি ডিজিটাল প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে।

বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক অথোরিটি (বিএইচটিপিএ) সূত্র জানায়, জেলার কান্দিভিটা এলাকায় ওই পরিত্যক্ত জেলখানাটির চারটি ভবনকে শেখ কামাল আইটি ট্রেইনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টার, নাটোর প্রজেক্ট এর আওতায় সংস্কার করে আধুনিকায়ন করা হয়েছে।

পাশাপাশি, ওই এলাকায় একটি ছয়-তলা ভিতের দোতলা ভবনও নির্মাণ করা হয়েছে এবং ভবনটিতে ১০টি ইনকিউবেশন সেল বা কক্ষ রয়েছে। প্রশিক্ষণ কেন্দ্র পরিদর্শনকালে দেখা গেছে যে- একটি দোতলা ভবনে তিনটি প্রশিক্ষণ ল্যাব স্থাপন করা হয়েছে। প্রতিটি ল্যাবে ২৫টি করে কম্পিউটার এবং ল্যাব-২ জেলখানার পুরুষ কয়েদিদের কক্ষে স্থাপন করা হয়েছে। ল্যাব-৩ নারী বন্দিদের সেলে স্থাপন করা হয়েছে।

দু’জন সুদক্ষ প্রশিক্ষক সপ্তাহে তিন দিনে এই কেন্দ্রটিতে প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকেন। এইচএসসি পাস যুবক ও যুব-মহিলারা বিনামূল্যে এখান থেকে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করতে পারেন।

এখন পর্যন্ত ৮৫০ জন যুবক ও যুব-মহিলা এই ইনকিউবেশন কেন্দ্র থেকে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেছেন। আরটি আইটি কোম্পানি এখান থেকে তাদের ব্যবসা পরিচালনা করছে।

ডিজিটাল প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের প্রশিক্ষখ আবু সাঈদ বলেন, ফ্রিল্যান্সিংয়ের মাধ্যমে যুবক-যুবতীদের স্বনির্ভর করে গড়ে তোলার লক্ষ্যে তারা মূলত ওয়েব-ডিজাইন ও ওয়েব-ডেভেলপমেন্টের ওপর প্রশিক্ষণ দিচ্ছেন।

কিন্তু গ্রাহকদের সাথে ইংরেজিতে কথা বলার ক্ষেত্রে যুবকদের অদক্ষতার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের মৌলিক ইংলিশ ও কম্পিউটারের ওপর প্রথম ছয়টি বুনিয়োদী প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়। পরে, যুবক-যুবতীদের ওয়েব ডিজাইন ও ডায়নামিক ওয়েবসাইটের ওপর প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।

ইনকিউবেশন সেন্টারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বিকর্ণ কুমার ঘোষ বলেন, শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টার আইটি সম্পর্কিত প্রয়োজন ভিত্তিক কোর্স প্রণয়ন ও প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে ফ্রিল্যান্সার তৈরি করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।

তিনি বলেন, ইনকিউবেশন সেন্টারে একটি প্রশিক্ষণ কক্ষ, একটি সম্মেলন কক্ষ এবং একটি অফিস কক্ষ সম্বলিত একটি নতুন ভবন নির্মাণ করা হয়েছে।

আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ইনকিউবেশন সেন্টার থেকে প্রশিক্ষণ প্রদান করে শুধুমাত্র সিংড়া উপজেলাতেই গত ২০ মাসে কয়েক’শ ফ্রিল্যান্সার তৈরি করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘আমরা পরিত্যক্ত নাটোর কারাগারকে আধুনিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে রূপান্তরিত করেছি, যা ইতিমধ্যে প্রায় ৫০০ কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি করেছে। বিএনপি-জামায়াত সরকারের আমলে আমিও সাত দিন এই কারাগারে বন্দি ছিলাম।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টার ছাড়াও আরও আটটি ইনকিউবেশন সেন্টারের নির্মাণ কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে রয়েছে আমরা এই বছরের মধ্যেই সেগুলোর উদ্বোধন করব।’

পলক বলেন, এছাড়া আরও ১১টি ইনকিউবেশন সেন্টার নির্মাণের কাজ গত ১ নভেম্বর শুরু হয়েছে এবং আরো ১৪টির নির্মাণ কাজ শুরু হওয়ার অপেক্ষায় রয়েছে। তিনি বলেন, ‘আমরা ২০২৫ সালের মধ্যে ৬৪টি জেলায় ইনকিউবেশন সেন্টারের নির্মাণ কাজ শেষ করবো।’
(ajkernatore)

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ

© স্বত্ত্বঃ নাটোর টাইমস: ২০১৭-২০২১ --- “নাটোর টাইমস” এ প্রকাশিত/প্রচারিত যেকোন সংবাদ, আলোকচিত্র, অডিও বা ভিডিওচিত্র বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বেআইনি এবং নিষিদ্ধ।

Site Customized By NewsTech.Com